চলমান প্রবৃদ্ধি এবং উন্নয়নের জন্য কর্পোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতা (CSR) ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ

Image

বর্তমানে শুধুমাত্র মুনাফা অর্জন লক্ষ্য নিয়ে ব্যবসা পরিচালিত হয় না। ভোক্তা, শ্রমিক ইউনিয়ন, সরকার, এবং সর্বপরি একটি দৃঢ় কর্পোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতার (CSR) কাঠামো দ্বারা চালিত হয়। বর্তমানে প্রগতিশীল ও বিশ্বায়ন প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশে ব্যবসা পরিচালনার জন্য সিএসআর পদ্ধতির ব্যবহার আবশ্যিক এবং বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এটা বেশ প্রাসঙ্গিক।

বাংলাদেশ একটি অতি রপ্তানি-ভিত্তিক অর্থনীতির দেশ; দেশটি রপ্তানি আয়ের মাধ্যমে তার জিডিপির একটি বড় অংশ আয় করে। বিশ্ববাজারে অবস্থান পোক্ত করবার জন্য টেক্সটাইল ও ফার্মাসিউটিকাল কোম্পানিগুলোর দৃঢ় CSR নীতি গ্রহণ করা অনিবার্য হয়ে পড়েছে।

বর্তমানে প্রথম সারির বাংলাদেশী কোম্পানিগুলো দেশে ও বিদেশে ব্যপকভাবে কর্পোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতা পালন করছে। বাংলাদেশের প্রখ্যাত ব্যবসায়ী সোহেল এফ রহমান এবং সালমান এফ রহমান এই ধরনের উদ্যোগ এবং দায়িত্বের প্রতি অনেক আগে থেকে গুরুত্বারোপ করেছেন। তাদের গড়া বেক্সিমকো গ্রুপ ১৯৮০ দশক থেকে ই কর্পোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতার মাধ্যমে সমাজ ও দেশের জন্য অনেক কিছু করেছে। ২০১৭ সালে মায়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়ে কর্পোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতার ধারনা আবার পুনরুজ্জীবিত করেছেন এই দুই শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়ী।

এটা মাথায় রাখতে হবে যে, বাংলাদেশের মত একটি উন্নয়নশীল দেশে একটি কার্যকর সিএসআর বাস্তবায়ন জনগণের উন্নয়নের জন্য ফলপ্রসূ হতে পারে। কারন সিএসআর শুধুমাত্র দাতব্য বা জনহিতকর নয় বরং এটা আরও মৌলিক; এটা সমাজের দূর্বলতম শাখার উন্নয়নের জন্য কাজ করে। সিএসআর এর প্রধান উদ্দেশ্য শুধুমাত্র সামাজিক উন্নয়ন, কর্পোরেট সুশাসন, পরিবেশ ব্যবস্থাপনা এবং শ্রম অধিকারে উন্নয়নই করেনা, এটা টেকশই শিল্পায়ন এবং বিশ্ববাজারে প্রবেশাধিকারও নিশ্চিত করে।

একটি ভাল সুশাসন নীতি প্রত্যক ক্ষেত্রেই চলমান প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়নের জন্য জরুরী। এটা সত্য কথা যে বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ। যদিও ব্যবসায়িক নীতিমালায় একটি পরিপূর্ণ সিএসআর কাঠামো বাস্তবায়ন করার জন্য অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে তবে সেটা সম্ভব যদি বেক্সিমকো গ্রুপের মতন আরও প্রতিস্থান এগিয়ে আসে। কঠোর সিএসআর চর্চা দেশের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি করবে। বেক্সিমকো গ্রুপের সোহেল এফ রহমান এবং সালমান এফ রহমান এক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নেতৃত্ব দেবেন বলেই আশা করা যায়।

 

পূর্ববর্তী পোস্ট
নবায়নযোগ্য জ্বালানি হবে আগামীর মূল শক্তি
পরবর্তী পোস্ট
চীনা কনসোর্টিয়াম ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ এর সাথে যুক্ত হয়েছে

Related Posts