জাহাজনির্মাণ শিল্পের সম্ভাবনা উজ্জল

December 6, 2013
Image

বাংলাদেশের জাহাজর্নিমাণ শিল্প এগুচ্ছে।সরকারের উচিত ব্যবহৃত জাহাজ আমদানি নিষিদ্ধ করা এবং স্থানীয় জাহাজ নির্মাতাদে আরও  আর্থিক প্রণোদনা ও নীতিগত সহায়তা দেয়া। সরকার এই বিকশমান খাত-কে তহবিল ব্যয় কমিয়ে সাহায্য করতে পারে; তুলনামুলোক ভাবে যেখানে চায়নাতে মাত্র ৭ শতাংশ বাংলাদেশে তা ১৮ শতাংশ।

যে চারটি স্তম্ভ এর উপরে জাহাজনির্মাণ শিল্প দাড়িয়ে সেগুলো হল-গুনাগুণ, সময়মত হস্তান্তর, যৌথ উদ্যেগ ও র্কপোরেট সামাজিক দায়দায়িত্ব।

ওয়ের্স্টান মেরিন শিপইয়ার্ড লিঃ দেশের জাহাজনির্মান শিল্পে শীর্ষে। তারা ছোট হিসেবে ২০০০ সালে যাত্রা শুরূ করে। তখন বেশিরভাগ নৌ পেশাজীবি মনে করে ছিলেন যে এই খাতেও বাংলাদেশে উন্নতি করতে পারে যেমন জাহাজনির্মান শিল্প চায়না, জাপান ও কোরিয়ার র্অথনীতির মেরূদন্ড হয়ে উঠেছিল। মাত্র ২০০ র্কমী নিয়ে সাধারন ভাবে শুরূ করা এই কোম্পানি বর্তমানে ৩৫০০ জনের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছে। ২০১২ সালের ৩০ শে জুন পর্যন্ত কোম্পানির লেনদেন ছিল ৩৭০ কোটি টাকা যার মধ্যে লভ্যাংশ ৪০ কোটি টাকা।

সরকার নদী খণন করার একটি প্রকল্প নিয়েছে যেহেতু প্রধান সমস্যা হলো পলি জমার কারনে নদীগুলো সঠিক ভাবে প্রবাহিত হয় না। একারনে সরকার বিভিন্ন ধরনের ড্রেজিং জাহাজ তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই সব জাহাজগুলো বাংলাদেশেই তৈরি করা যেতে পারে।

বাংলাদেশে জাহাজনির্মান শিল্পের ভবিষ্যত উজ্জল যেহেতু স্থানীয় বাজারে এর চাহিদা অনেক বেশী। আর্ন্তজাতিক বাজারেও এর চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

পূর্ববর্তী পোস্ট
সেরা পাঁচ মোবাইল অ্যাপস
পরবর্তী পোস্ট
একক মালিকানার আদ্যোপান্ত

Related Posts