ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১ |

নির্বাচনের মৌসুম, উত্তেজিত সবাই

November 17, 2018
Image

চা পাগল বাঙালির চায়ের কাপে ঝড় তুলতে এখন আলোচনার সবথেকে লোভনীয় বিষয় হচ্ছে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। হাতে সময় একদম নেই বললেই চলে, তাই দিন যত যাচ্ছে তার সাথে উত্তেজনাও বাড়ছে রাজনীতিবিদসহ দেশের ১৬ কোটি জনগণের। আওয়ামী-লীগের বিগত ১০ বছর ক্ষমতা থাকাকালীন সময়ে দেশের বহু ক্ষেত্রে উন্নতির ছোঁয়া লাগলেও এই সরকারের বদনামও কম হয়নি। তবুও আশা করাই যাচ্ছিলো এবারও সরকার তাদের জয়ের ধারা অব্যাহত রাখতে পারবে।

আর এই আশঙ্কার পেছনের কারণ ছিল প্রধান বিরোধী দলীয় রাজনৈতিক দল বিএনপি-এর দুর্বল অবস্থান এবং তাদের নির্বাচনে লড়াই করার মতন যোগ্য লোকবলের অভাব। বর্তমান সরকারের বিকল্প অনেকে খুঁজলেও সেরকম শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বীর অভাব বেশ স্পষ্ট। তাই নির্বাচনে জয়ের চিন্তামুক্ত থেকে সরকার এই সময়টা ভালো পার করতেই পারতো যদি না ঐক্যফ্রন্ট এবং গণফোরাম একজোট হয়ে এবারের ১১তম সংসদীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণের ঘোষণা না দিত। মতের ভিন্নতা থাকলেও কিছু বিষয়ে একমত হওয়ায় পরবর্তীতে বিএনপিও ঐক্যফ্রন্ট-এর সাথে একজোট হয়।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যদিও এই ঐক্যজোটকে স্বাগত জানিয়েছেন, কিন্তু সম্পর্কের উষ্ণতা কতদিন টিকে থাকে তাই এখন দেখার বিষয়। এছাড়াও এ.এইচ.এম হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ-এর নেতৃত্বে বিরোধী দল হিসেবে এখনও জাতীয় সংসদে রয়েছেন এবং স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে যাচ্ছে।

[caption id="attachment_1251" align="alignleft" width="196"] ব্যবসায়ী নেতা সালমান এফ রহমান[/caption]

 

পড়ুনঃ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে জল্পনা কল্পনা

২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় দশম জাতীয় সংসদীয় নির্বাচন ছিল প্রায় পুরোটাই একদলীয়। তাই তার আমেজটাও ছিল কম। বিএনপি নির্বাচন বয়কট করায় আওয়ামী-লীগ সরকারের জয় প্রায় পূর্ব-অনুমেয় ছিল। কিন্তু এবারের নির্বাচন যে বেশ প্রতিযোগিতামূলক হতে যাচ্ছে তা কিছুটা আন্দাজ করাই যাচ্ছে। সরকারের সাথে দুই দফা বৈঠক করার পরেও ঐক্যজোট বিশেষ কোন সুবিধা করতে পারেনি। ফলে এরই মাঝে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা আগুনে ঘি ঢালার মতন উত্তেজনা বাড়িয়ে দিয়েছে রাজনীতিবিদদের মাঝে।

 

শীর্ষ দৈনিক প্রথম আলো বলছেঃ মনোনয়নের দৌড়ে ব্যবসায়ী নেতারা

সভা-সমাবেশ বা রাস্তায় রাস্তায় প্রচার মিছিল এখন নিত্যদিনের ছবি। একদিকে সাধারণ মানুষ তাদের নিজেদের বিচার-বিশ্লেষণ দিয়ে আলোচনা করছে যে কারা ক্ষমতায় আসবে বা কাদের আসা উচিৎ বা কিভাবে দেশের মঙ্গল আসবে। অন্যদিকে যতটা সম্ভব শান্ত থেকে নিজেদের দাবিগুলো আদায়ের চেষ্টা করে যাচ্ছে প্রতিটি রাজনৈতিক দল। কিন্তু পরিবেশটা কি শেষ পর্যন্ত এরকম শান্ত থাকবে? ১১তম জাতীয় সংসদীয় নির্বাচন কি একটি মাইলফলক হয়ে থাকবে? প্রতিবারের মতন এবারও যুক্ত হয়েছে কয়েক হাজার বা লক্ষাধিক নতুন ভোটার। সেই সাথে এবারও কি আসবে নতুন কোন সরকার? সব প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে ৩০শে ডিসেম্বর। সে পর্যন্ত অপেক্ষায় থাকতে হবে সবাইকে।

পূর্ববর্তী পোস্ট
বয়স্ক মানুষের সংখ্যাধিক্য এবং নগরায়ন
পরবর্তী পোস্ট
বীরশ্রেষ্ঠ সিপাহী হামিদুর রহমান

Related Posts