পারিবারিক গ্রীষ্মকালীন ভ্রমণের কিছু নির্দেশিকা

Image

গরমের ছুটিতে ঘুরতে যাবেন? পরিকল্পনা শুরু করেছেন? গরমের ছুটিতে পরিবার বা বন্ধুবান্ধবদের সাথে নির্ঝঞ্ঝাট ঘুরে বেড়াতে কার না ভালো লাগে। এখানে গ্রীষ্মকালীন বিনোদন ভ্রমণের কিছু নির্দেশিকা দেয়া হলঃ

প্যাকিং এর সময় আঙ্গিক বিভাগের দিকে তাকানোঃ পরিবারের প্রতিটি সদস্যের জন্যই আগে থেকে জিনিসপত্র গুছানো উচিৎ তাড়াহুড়া এড়াতে। এজন্য মাথা থেকে পা পর্যন্ত প্রতিটি অঙ্গের জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের তালিকা তৈরি করা উচিৎ। অপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলোকে পরবর্তীতে তালিকা থেকে বাতিল করা যেতে পারে।

অর্থ বাঁচানোঃ যদি ভ্রমনে ড্রাইভিং করতে হয়, তবে ঠাণ্ডা পরিবেশে কিছু খাবার ও পানীয় নেয়া উত্তম। এটিএম কার্ডের ঝামেলা এড়াতে পথে বড় কোন দোকান কিংবা গ্যাস স্টেশন থেকে টাকা ভাঙ্গিয়ে নেয়া যেতে পারে। এছাড়া হোটেলের বিভিন্ন প্যাকেজ অফার নিলে তাতে টাকা বাঁচে।

বহনযোগ্য ব্যাগে অতিরিক্ত কাপড় নেয়াঃ প্রতিবছর ২৯মিলিয়ন লাগেজ ব্যাগ হারিয়ে যায়, সুতরাং সাথে থাকা হালকা ব্যাগে কিছু কাপড় থাকলে বিপদে কাজে আসবে। ট্র্যাভেল ব্যাগ চুরি বা হারানো গেলে অবশ্যই স্থানীয় প্রশাসনকে জানানো উচিৎ।

পুরনো অন্তর্বাস নিয়ে নেয়াঃ হালকা জিনিসপত্র দিয়ে ব্যাগ গুছালে ব্যাগে বেশি জায়গা থাকে যাতে ফেরার সময় বেশি জিনিস কিনে আনা যায়। এজন্য পুরনো অন্তর্বাস নেয়া যেতে পারে, কেননা তাহলে প্রতিদিনের ব্যবহার করা অন্তর্বাস ফেলে দিলে ব্যাগ আরও হালকা হবে যাতে বেশি জিনিস আঁটানো যায়।

বাচ্চাদের ব্যস্ত রাখাঃ দূরের ভ্রমণে বাচ্চাদের সময় কাটানোর জন্য আঁকার বই, কাগজ, পাজল কিংবা শিক্ষামূলক খেলনা নেয়া উপকারি। এছাড়াও ফ্রি ছাপানোর মত রঙের কাগজ, গল্পের বই যেকোনো জায়গাতেই পাওয়া যায়।

শিশুদের ভ্রমণে উপযোগী করে তোলাঃ ভ্রমণের আগে সহায়িকা বইএর সাহায্য নেয়া জরুরি। শিশুদের ভ্রমণ-সংক্রান্ত যাবতীয় কাগজপত্র ঠিকঠাক করে রাখতে হবে এবং তাদের প্রয়োজনীয় নির্দেশিকা বুঝিয়ে দিতে হবে।

ভ্রমণ ইনস্যুরেন্স পরিকল্পনাঃ ভ্রমণের যেকোনো অনাকাঙ্খিত দুর্ঘটনা, অপ্রত্যাশিত বিলম্ব কিংবা নতুন হোটেল বা যাত্রা মাধ্যম ঠিক করার জন্য ইনস্যুরেন্স বড় সহায়িকা শক্তি হিসেবে কাজ করে। তাই ভ্রমণের জন্য ইনস্যুরেন্স একান্তই জরুরি।

পরিপূর্ণ পরিকল্পনা ও পূর্বপ্রস্তুতি মাধ্যমেই একটি সফল ও আনন্দদায়ক ভ্রমণ সম্ভব যা কাজের চাপ থেকে মনকে মুক্তি দিয়ে অনাবিল চালিকাশক্তিতে ভরে তোলে সত্তাকে।

পূর্ববর্তী পোস্ট
খামারের পরিসর এবং উৎপাদনযোগ্যতা
পরবর্তী পোস্ট
কাঠমান্ডুতে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমান বিধ্বস্ত

Related Posts